শ্রীপুরের বরমী বাজারে পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ-অবরোধ

শাহাদাত হোসেন সাদেক, শ্রীপুর : গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী বাজারে পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে দোকানপাট বন্ধ ও বরমী-কাওরাইদ সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন ব্যবসায়ীরা।

শুক্রবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ কর্মসূচি পালিত হয়।

শুক্রবারের মধ্যে আটক চার ব্যবসায়ীকে মুক্তি দেওয়া না হলে শনিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ঘোষণাও দেন ব্যবসায়ীরা।

bormi-strike

বরমী বাজার বণিক সমিতির সভাপতি অহিদুল হক ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন মোড়লের পরিচালনায় জনতার মোড়ে প্রতিবাদ সভায় ব্যবসায়ীদের সাথে আওয়ামী লীগ নেতা ও জনপ্রতিনিধিরা যোগ দেন।

বরমী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুস ছামাদ শেখ বলেন, কয়েক মাস যাবত ডিবি ও থানা পুলিশ বাজারের ব্যবসায়ীদের নানাভাবে হয়রানি করছে। ব্যবসায়ী হেলাল উদ্দিনের ছেলে আনোয়ার হোসেনের পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দিয়ে ৪০ হাজার টাকা নিয়ে তাকে হয়রানি করা হয়।

বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন মোড়ল বলেন, ম্যাজিস্ট্রেট ছাড়া সাদা পোশাকে ডিবি পুলিশ ব্যবসায়ীদের দোকানে হানা দেয়। তারা ভ্রাম্যমাণ আদালতের ভয় দেখিয়ে নীরব চাঁদাবাজি করছে। চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের সোর্স বানিয়ে সাধারণ ব্যবসায়ীদের হয়রানি করা হচ্ছে।

বরমী ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল হক বাদল সরকার বলেন, বৃহস্পতিবার উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় স্থানীয় সাংসদ অ্যাডভোকেট মো. রহমত আলী পুলিশের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করার অভিযোগ তুলেছেন।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে সাদা পোশাকে চারজন ব্যক্তি ডিবি পরিচয়ে পলিথিন জব্দের নামে আমীর ট্রেডার্সে অভিযান চালান। তারা ওই দোকানে পলিথিন জব্দ করে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দন্ড দেওয়ার কথা বলেন। এ সময় বাজারের ব্যবসায়ীরা ম্যাজিস্ট্রেটবিহীন ভ্রাম্যমাণ আদালত নিয়ে প্রশ্ন তুলেন।

এ নিয়ে ডিবি পুলিশের সাথে তাদের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ইটপাটকেলের আঘাতে কনস্টেবল ইয়াসিন আহত হন। পরে ব্যবসায়ীরা পুলিশ সদস্যদের বণিক সমিতিতে অবরুদ্ধ করে রাখেন।

এ ঘটনায় ব্যবসায়ী শাহাদাত হোসেন শামীম, শরীফ মোড়ল, বাবুল আকন্দ ও ভাপন দাসকে আটক করে পুলিশ।

আরও খবর

Contact Us