কাপাসিয়ায় হরিলুট নিয়ে ইউএনওর প্রতিবাদ ও প্রতিবেদকের বক্তব্য

আলোকিত প্রতিবেদক : গত ৪ ফেব্রুয়ারি আলোকিত নিউজ ডটকমে ‘কাপাসিয়ায় গরিবের গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে হরিলুট’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এর প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসমত আরা সম্পাদক বরাবর একটি প্রতিবাদপত্র পাঠান।

এতে বলা হয়, প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। উপজেলা প্রশাসন যথাযথ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে।

ঘাগটিয়া ইউনিয়নের জাবর গ্রামে কয়েকটি পিলার ভেঙে দেখা যায়, প্রাক্কলন অনুযায়ী চারটি করে রড ব্যবহার করা হয়েছে। তৈরিকৃত ঘর নিয়ে উপকারভোগীদের কোন অভিযোগ নেই।

প্রতিবেদনে মিস্ত্রিদের নাম ও ঘরের ঠিকানা উল্লেখ করা হয়নি। ইট ও কাঠের যে ছবি ছাপা হয়েছে, তা কোন ঘরে ব্যবহার করা হয়েছে উল্লেখ নেই।

প্রতিবেদকের বক্তব্য : প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের এই মানবিক কাজ যেন মানসম্মতভাবে সম্পন্ন হয়, সেই উদ্দেশ্য নিয়েই অনিয়মগুলো তুলে ধরা হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্যসমূহ সরেজমিনে যাচাই এবং প্রমাণাদি সংগ্রহ করে তৈরি প্রতিবেদনটিতে কোন ধরনের মিথ্যার আশ্রয় নেওয়া হয়নি।

প্রতিবাদপত্রে কয়েকটি পিলার ভেঙে চারটি করে রড পাওয়ার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু রডগুলো কত মিলির, মানসম্মত কি না, অন্য এলাকার কী অবস্থা, তা উল্লেখ নেই।

মিস্ত্রিদের বরাত দিয়ে জাবর গ্রামে ২০টি ঘরের কথা বলা হয়েছে। ঘরগুলো কার কার, তা তালিকার বাইরে নয়। আর মিস্ত্রিদের অনুরোধে নাম গোপন রাখা হয়েছে।

তা ছাড়া প্রথম ছবিতে স্থান স্পষ্ট। রাস্তা সংলগ্ন ঘরের সামনেই নিম্নমানের কাঠ ও ইট। কোন ঘরে যাচাই করে দেখা হয়েছে কি না, তা উল্লেখ করা হয়নি।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য। তার বাড়িও জাবর গ্রামে। তিনি নিজেই আপত্তি দিয়ে নিম্নমানের সামগ্রী পাল্টে দিতে বলেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিবেদন প্রকাশের পর নিম্নমানের সামগ্রী পাল্টানো শুরু হয়েছে। গরিব মানুষ মানসম্মত ঘর পাবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

image_printপ্রিন্ট করুন
Share
  • 209
    Shares
আরও খবর