গাজীপুরে সান পাওয়ারের ১২ কোটি টাকার বনভূমি দখল ধামাচাপা!

আলোকিত প্রতিবেদক : গাজীপুরে তিন বিঘা বনভূমিতে সান পাওয়ার সিরামিকসের গোডাউন নির্মাণের ঘটনা ধামাচাপা দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা বন বিভাগের রাজেন্দ্রপুর রেঞ্জের মনিপুর বিটের বেগমপুর হোতাপাড়া এলাকায় অবাধে চলে এ দখলযজ্ঞ।

বিষয়টির ওপর ২০১৮ সালের ২২ সেপ্টেম্বর আলোকিত নিউজ ডটকমে একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

পরে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সাবেক সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) এনামুল হক তদন্ত করেন।

তখন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মোহাম্মদ ইউছুপ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বললেও গত প্রায় আড়াই বছরেও দৃশ্যত কিছুই হয়নি।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিম পাশে বৃহৎ আয়তনের সান পাওয়ার সিরামিকস অবস্থিত। কারখানাটির মালিক তাইওয়ানের নাগরিক চেন ইয়াং ফু।

২০১৮ সালের প্রথম দিকে তারা কারখানা সম্প্রসারণের কাজে হাত দেন। উত্তর পাশে তিন বিঘার অধিক বনভূমি কিনে গোডাউন নির্মাণ করা হয়।

পাকা স্থাপনা ও ছাউনির কাজ শেষ হতে সময় লাগে কয়েক মাস। বিট অফিস কাছে থাকলেও কখনো বাধা দেয়নি।

দখলীয় এসএ ৪৩২ নং দাগের ওই জমি বন বিভাগের নামে গেজেটভুক্ত। যার বাজারমূল্য বেড়ে এখন ১২ কোটি টাকা।

স্থানীয় খোরশেদ মাস্টার ও তার পরিবারের সদস্যরা ২০১৭ সালের শেষ দিকে জমি বিক্রি করে অন্যত্র চলে যান। সান পাওয়ার প্রায় সাড়ে চার কোটি টাকায় প্রথমে ৮৮ শতাংশ ও পরে ১৫ শতাংশ কিনে নেয়।

ওই দাগের জমি নিয়ে বন বিভাগের পক্ষে আদালতে মামলাও বিচারাধীন। সরকারি নির্দেশে বন্ধ রয়েছে খাজনা-খারিজ। তাদের কারও ডিমারকেশনও নেই।

সাবেক বিট কর্মকর্তা আশরাফুল আলম দোলনের আমলে গোডাউনের পাইলিং ও নির্মাণ কাজ শুরু হয়। আর তা শেষ হয় ইতিমধ্যে বদলি হয়ে যাওয়া বিট কর্মকর্তা নূর মোহাম্মদের আমলে।

এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ওই দাগের জমিতে ছোট ঘর করলেও বিট অফিস বাধা দেয়। অথচ সান পাওয়ার বড় গোডাউন করলেও কিছুই হয়নি। শুনেছি মোটা অঙ্কের টাকা লেনদেন হয়েছে।

তারা আরও বলেন, সান পাওয়ার আরও আগে থেকেই বড় দখলদার হিসেবে তালিকাভুক্ত। তাদের কবল থেকে বনভূমি উদ্ধার ও জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

এ ব্যাপারে বন অধিদপ্তরের কেন্দ্রীয় অঞ্চলের বন সংরক্ষক (সিএফ) আর এস এম মুনিরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ডিএফওর সাথে কথা বলার পরামর্শ দেন।

পরে ডিএফও মোহাম্মদ ইউছুপের সাথে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি কল ধরেননি।

আরও পড়ুন : গাজীপুরে ৬ কোটি টাকার বনভূমিতে সান পাওয়ারের গোডাউন!

image_printপ্রিন্ট করুন
Share
আরও খবর