কাপাসিয়ার টোক বাজারে ‘নায়েবের যোগসাজশে’ খাস দখল!

নিজস্ব প্রতিবেদক, কাপাসিয়া : প্রশাসনের নাকের ডগায় মূল্যবান সরকারি জমি দখল করে দোকানপাট নির্মাণ করা হচ্ছে।

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার অন্যতম বৃহৎ টোক নয়ন বাজারে দীর্ঘদিন ধরে এসব চললেও মাঝে-মধ্যে দু-একটি অভিযান চালিয়ে দায় সারছে কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিনে জানা যায়, টোক ইউনিয়ন ভূমি অফিস সংলগ্ন বাজারটির পেরিফেরিভুক্ত খাস জমিতে অবৈধভাবে বিভিন্ন দোকান গড়ে উঠছে। ভারপ্রাপ্ত ভূমি সহকারী কর্মকর্তা খবীর উদ্দিন মোল্লা ওরফে নান্নুর আমলে দখলের ঘটনা বেড়েছে।

ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে কাঁচামাল ব্যবসায়ী আবদুল বারেক ১ নং খতিয়ানভুক্ত আরএস ৪৫ নং দাগের প্রায় দুই শতাংশ জমিতে গোডাউন নির্মাণ করেছেন। স্পটটি পুলিশ ফাঁড়ি সংলগ্ন।

আমিনুল ও সিরাজুলের দোকান নির্মাণ

ভূমি অফিসের ১০০ গজ দূরত্বে পৌনে দুই শতাংশ জমিতে দোতলা দোকান নির্মাণ করেছেন ওষুধ বিক্রেতা মাসুমের বাবা আমিনুল ইসলাম। সাথে সোয়া এক শতাংশ জমিতে দোতলা দোকান করেছেন সিরাজুল ইসলাম।

আমিনুলের দোকানের ভেতরের চিত্র

মধ্য বাজারে আমির আলী অ্যাঙ্গেল দিয়ে দোতলা দোকান নির্মাণ করেছেন। একই গলিতে আবদুস সালাম ওরফে চানু মেম্বার দোকান করে এক হোটেল ব্যবসায়ীর কাছে ভাড়া দিয়েছেন।

চানু মেম্বারের হোটেল নির্মাণ

একাধিক ব্যবসায়ী জানান, আবদুল বারেকের আধা পাকা গোডাউনটি কয়েক দিনে করা হলেও কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। খবর পেয়ে নায়েব শুধু সাথের একটি টিনশেড দোকানের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন।

গত ২৯ অক্টোবর সহকারী কমিশনার (ভূমি) তানভীর ফরহাদ শামীম উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে এক প্রভাবশালী ব্যক্তির দখল থেকে আট শতাংশ সরকারি জমি উদ্ধার করেন।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, নির্মাণাধীন ওই টিনশেড স্থাপনা উচ্ছেদে প্রশাসন যে তৎপরতা দেখিয়েছে, অন্যগুলোর ক্ষেত্রেও তৎপর থাকলে দখল বন্ধ হত।

অভিযুক্ত আবদুল বারেক আলোকিত নিউজকে বলেন, আমি ২০২০ সালে রবিন ভূঁইয়ার কাছ থেকে পজিশন কিনেছি। তবে স্থাপনা নির্মাণের কোন অনুমতি নেই।

ওয়াকিবহাল সূত্র জানায়, ভূমি অফিসের যোগসাজশে সাধারণত সরকারি ছুটির দিনে স্থাপনা নির্মাণ করা হয়। এভাবে দখল চলায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা বঞ্চিত হচ্ছেন।

জানতে চাইলে ভূমি কর্মকর্তা খবীর উদ্দিন মোল্লা আলোকিত নিউজকে বলেন, স্থাপনা নির্মাণের বিষয়টি তার জানা ছিল না। ভাঙার জন্য এসিল্যান্ডের কাছে প্রতিবেদন দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে এসিল্যান্ড তানভীর ফরহাদ শামীম আলোকিত নিউজকে বলেন, এ ধরনের তথ্য আমাকে কেউ জানায়নি। আপনি এখন জানিয়েছেন, ব্যবস্থা নেব।